কড়া পড়া এবং মরা ত্বক

লক্ষণ ও উপসর্গ

কড়া পড়া:

পায়ের তালুতে রুক্ষ, মোটা এবং মরা ত্বক, এবং হাতের তালুতে কিংবা দেহের অন্যান্য অংশে রুক্ষ এবং ঘর্ষণমুখী ত্বক।

কর্ন : দুই আঙ্গুলের মাঝখানে অথবা পায়ের আঙ্গুলের উপরে বা পাশে মোটা, শক্ত এবং মরা ত্বক।

কী করা উচিত

  • ঝামা ইট দিয়ে কিংবা কড়া ওঠাবার ফাইল দিয়ে মোলায়েমভাবে মরা ত্বকের উপর ঘষুন যাতে করে মরা শক্ত ত্বক উঠে আসে।
  • ফেঁটে যাওয়া কড়া উষä ফেনায়িত জলে ডুবিয়ে রাখুন। এবং ঝামা ইট দিয়ে মোলায়েমভাবে ঘষুন, এবং এরপর আক্রান্ত þহানে ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম কিংবা হাইড্রোকরটিসন ক্রিম লাগিয়ে দিন।
  • কর্নের অস্বস্তি থেকে বাঁচার জন্যে একটা কর্ন পেড আক্রান্ত þহানে লাগিযে দিতে পারেন।

কখন ডাক্তার দেখাবেন

  • যদি আক্রান্ত þহানটিতে ক্রমাগত ব্যথা থাকে, জায়গাটা লাল হয়ে যায়, ফুলে ওঠে, কিংবা কোন তরল জাতীয় পদার্থ সেখান থেকে নির্গত হয়। এর মানে হলো আপনার কড়া পড়া þহানটিতে ঘা তৈরি হয়েছে।
  • যদি আপনার ডায়াবেটিক থাকে কিংবা রক্ত চলাচল সংক্রান্ত কোন সমস্যা থাকে এবং আপনার কর্ন বা কড়া পড়ে। এক্ষেত্রে আপনি দ্বিতীয় পর্যায়ের ঘাঁ এর ঝুঁকিতে রয়েছেন। এবং বাসায় কোন চিকিৎসা করার আগে ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।
  • যদি নিজস্ব যত্ন-আত্তি কাজে না আসে, এবং আপনার যদি মনে হয় যে আপনার হাঁটার বিশেষ ভঙ্গির কারণেই পায়ের কড়া বা কর্নের উৎপত্তি। সেক্ষেত্রে একজন পা বিশেষজ্ঞ-এর সাথে যোগাযোগ করুন।

কীভাবে প্রতিরোধ করবেন

  • আপনার পা শুষ্ক রাখুন এবং লক্ষ্য রাখুন যেন জুতোর সাথে আপনার পায়ের খুব বেশি ঘর্ষণ না হয়। নায়লনের মোজা এবং ট্যালকাম পাউডার পায়ে মাখলে এই সমস্যা থেকে কিছুটা স্বস্তি পাবেন (যদি উল জাতীয় কিংবা সিনথেটিক কাপড়ের মোজ আপনার পা ঘামিয়ে দেয় সেক্ষেত্রে সুতির মোজা পড়ুন।)
  • ত্বক যখনই কড়া পড়ার মতো লক্ষণ দেখাতে শুরু করে অর্থাৎ মরে যায় এবং শক্ত হতে থাকে তখনই আক্রান্ত þহানটি ঘষে ঘষে উঠিয়ে ফেলতে পারেন। গোসলের পর, ঝামা ইট দিয়ে হালকাভাবে কর্ন বা কড়া ঘষে নিয়ে উঠোতে পারেন। ঝামা ইট বা পামিস স্টোন আপনি ওষুধের দোকানে খোঁজ করলে পেয়ে যাবেন।
  • আপনার পা ভালোভাবে মাপ দিয়ে মাপসই জুতোটাই কিনবেন। যাতে জুতোটা ঠিকমতো আপনার পায়ে লাগে। জুতোর সম্মুখ অংশ থেকে যেন আপনার পায়ের সবচে দীর্ঘ আঙ্গুলটি আধ ইঞ্চি মতো পেছনে থাকে তেমন জুতো কিনুন। এবং জুতোর ভেতরে আঙ্গুলগুলো যেন বাধাহীনভাবে নড়াচড়া করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন এবং তীক্ষî বা পয়েন্টেড হিল বা হাই হিল জুতো এড়িয়ে চলুন।
  • আপনার জুতোগুলো ভালো þহানে রাখুন এবং সেগুলো নিয়মিতভাবে ঠিক ঠাক রাখার ব্যবþহা নিন। জুতোর তলি ক্ষয়ে গেলে সেটা আপনার পায়ের তালুকে যথেষ্ট প্রতিরোধ দিতে ব্যর্থ হয় এবং বহুদিনের ব্যবহৃত জুতো ত্বকের ক্ষতি সাধন করে। এবং হিল জুতো পড়লে আপনার গোড়ালিতে বেশি চাপ পড়ে।
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *