নবজাতকের বিরল অস্ত্রোপচার

 শিশুটির বয়স সবে চার দিন। জন্মের পর থেকেই শ্বাসকষ্ট। পায়খানাও হচ্ছে না, ফলে পেট ফুলে উঠেছে। দেখা দেয় জীবনহানির শঙ্কা। দ্রুত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাকা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা যায়, পরিপাকতন্ত্রের নিচের অংশ (মলদ্বারের সঙ্গে সংযুক্ত নাড়ি) বন্ধ হয়ে আছে। তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে অপারেশন করা হয়। এই সাহসী ও সময়োপযোগী উদ্যোগের ফলে শিশুটি এখন ক্রমান্বয়ে সুস্থ হয়ে উঠছে, হাসছে, হাত-পা ছুড়ছে। চিকিৎসকসহ স্বজনদেরও শঙ্কা কেটে যাচ্ছে। বলা হচ্ছে, শিশুদের এ রকম সমস্যা খুব একটা দেখা যায় না। যেকোনো নবজাতকের জন্যই এ ধরনের অপারেশনে ঝুঁকি থাকে।

শিশুটির জন্ম হয় যশোরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। ‘প্রিম্যাচিউর’ ছিল। গর্ভে বয়স হয়েছিল ৩৪ সপ্তাহ। ওজন দুই কেজি ২০০ গ্রাম। গর্ভে ৩৭ সপ্তাহ এবং আড়াই কেজি ওজনের কম শিশুকে প্রিম্যাচিউর বা অপরিণত শিশু বলা হয়। অপারেশনের মাধ্যমে গত ২৯ অক্টোবর বিকেল সাড়ে ৫টায় শিশুটির জন্ম হয়। জন্মের পর শিশুটি কাঁদেনি এবং কিছু পরেই দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট। যশোরের একাধিক হাসপাতাল ঘুরে অবশেষে ভর্তি করা হয় খুলনার আদ্-দ্বীন-আকিজ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে, কারণ এই হাসপাতালে নবজাতকের জন্য কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাসের যন্ত্র আছে। শিশুটিকে কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্রের মাধ্যমে সুস্থ করার চেষ্টা চলে। এর দুই দিন পরেই দেখা দেয় নতুন বিপত্তি। পায়খানা না হওয়ায় পেট ফুলে ওঠে। ডাকা হয় খুলনা মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিশেষজ্ঞ সার্জন ডা. জাফর শরীফকে। তিনি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে পান শিশুটির একটি প্রয়োজনীয় নাড়ি অপেক্ষাকৃত সরু এবং মল শুকিয়ে জমাট বেঁধে আছে। ২ নভেম্বর বিকেল ৩টায় অপারেশন হয়। দুই ঘণ্টার এই অপারেশনে ডা. জাফর শরীফকে সহযোগিতা করেন শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ অ্যানেসথেটিস্ট ডা. বেলাল আহমেদ, আদ্-দ্বীন-আকিজ হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. বেল্লাল হোসেন ও ডা. শাকিল। অস্ত্রোপচারের সময় আরো দেখা যায়, শিশুটির পরিপাকতন্ত্রের উপরিভাগে পচনও ধরেছে। জায়গাটুকু চিকিৎসকরা কেটে বাদ দেন এবং নিচের অংশটি পরিষ্কার করেন। নবজাতকের নাড়ি এখন শরীরের অন্য অংশ দিয়ে বের করে রাখা হয়েছে। কারণ এখনই ওই কাটা অংশ বাকি অংশের সঙ্গে জোড়া লাগিয়ে দেওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। মাস ছয়েক গেলে সুবিধাজনক পরিস্থিতিতে আবারও একটি অপারেশন করে নাড়িটির সংযোগ ঘটিয়ে দেওয়া হবে।

যশোরের রূপদিয়ার বাসিন্দা বাহারুল ইসলাম ও মিসেস সালমার এই কন্যাশিশুটি এখন হাত-পা ছুড়ছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, শিশুটিকে এখনো অনেক দিন পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে।

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *