যেভাবে ভাজাপোড়াও হবে স্বাস্থ্যকর

শুরু হলো পবিত্র রমজার মাস। সারা দিন রোজা শেষে ইফতারিতে ভাজাপোড়া না হলে যেন চলেই না। ভাজাপোড়া খেতে আমরা সবাই কম বেশি ভালোবাসি। তবে তেল থাকায় মুটিয়ে যাওয়াসহ নানা স্বাস্থ্যঝুকির আশঙ্কায় অনেকেই ভাজাপোড়া থেকে দূরে থাকতে চান।রসনা বিশেষজ্ঞরা বলেছেন,অতিমাত্রায় ভাজাপোড়া খাওয়া ঠিক নয়,কারণ এসব খাবারে থাকা চর্বি শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তবে কিছু পদ্ধতি অনুসরন করলে সহজেই চর্বিযুক্ত,স্বাস্থ্যকর ও কুড়মুড়ে খাবার পাওয়া সম্ভব।

স্বাস্থকর তেল: ভাজাপোড়ায় যে তেল ব্যবহার করবেন, সেটা অবশ্যই স্বাস্থ্যকর হতে হবে। আরো দেখতে হবে তেলটি হৃৎপিন্ডের জন্য ক্ষতিকর কিনা ? সে রকম হলে সেই তেল ব্যবহার বন্ধ করে দিতে হবে। খেয়াল রাখতেন, যে তেল ব্যবহার করবেন ,তাতে স্যাচুরেটেড ফ্যাটের মাত্রা যত কম থাকবে,ততই ভাল।যারা ভাজাপোড়া তৈরি করেন,তাদেরও একটু সতর্ক হওয়া উচিত। ভাজার সময় তেল থেকে যে ধোয়া তৈরি হয়,সেটা কোনভাবেই নিঃশ্বাসের সাথে গ্রহণ করা উচিত নয়, এটা ফুসফুসের জন খুবই ক্ষতি কর।

তাপমাত্রা: কোনো কিছু ভাজার সময় তেল যথেষ্ট গরম করে নিতে হবে। কারণতেল যদি গরম কম হয় , তাহলে কিছু ভাজার জন্য ছাড়া হলে তা জেল শোসণ করতে থাকে। গরম থাকলে এই তেল শোষন অনেক কম হয়।

হোটেল-রেস্টুরেন্ট: বেশির ভাগ হোটেল-রেস্টুরেন্টই ভাজার জন্য তেল ছেকে বেশ কয়েকবার ব্যবহার করা হয়। এটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এ ধরনের ভাজাপোড়া যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ তেল যতবার ব্যবসাহর করা হয় , ততই এর মধ্যে  চর্বী অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর উপাদান জনমতে থাকে। তাই সবসময় পরিষ্কার ও নতুন তেল দিয়ে রান্না করা উচিত।

তেল শুকানো: তেল থেকে ভাজা খাবার তোলার পর তা ছিদ্রযুক্ত পাত্রে বা টিস্যু পেপাওে মুড়িয়ে রাখতে হবে। এত খাবার থেকে তেল শোষিত হবে। এই তেল এভাবে শুকিয়ে না নিলে খাবার এবং তেলের তাপমাত্রা কমার সঙ্গে সঙ্গে তেল খাবারের ভেতরে শোষিত হয়। অর্থাৎ খাবারের সঙ্গে তখন আপনাকে এই তেল খেতে হয়।

আট-ময়দার আস্তরণ: মুরগি থেকে বেগুনি প্রায় সব ভাজাপোড়াতেই বিস্কুটের গুড়ো কিংবা আট-ময়দার আস্তরণ ব্যবহার করা হয়। আটা-ময়দার পরিমান বেশি হলে তাতে তেল শোষণের মাত্রাও বেশি হয়। তাই ভাজাপোড়ার সময় এদিকেও খেয়াল রাখতে ভুলবেন না যেন।

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...

One thought on “যেভাবে ভাজাপোড়াও হবে স্বাস্থ্যকর

  • June 6, 2016 at 7:42 am
    Permalink

    সমযোপযোগী লেখা, খুব ভালো লাগলো ধন্যবাদ মেডিকেলইনফোবিডি

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *